নেপালে করোনা পরীক্ষা-চিকিৎসা ফ্রি

নাগরিকদের বিনামূল্যে করোনা ভাইরাসের পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং চিকিৎসা সেবা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে নেপাল। মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) দেশটির প্রধানমন্ত্রীর এক সহযোগী এ তথ্য জানান। নেপালে করোনা শনাক্তের সংখ্যা প্রায় ২ লাখ।

গেলো সপ্তাহে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট কমিউনিস্ট সরকারকে করোনা চিকিৎসায় পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানায়। বলা হয়, যাদের সামর্থ আছে তারা অর্থ ব্যয় করবে। যাদের নেই তাদেরকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দেয়ার জন্য বলা হয়।

প্রধানমন্ত্রী ওলীর সহযোগী সুরিয়া থাপা জানান, সরকারি সব হাসপাতাল করোনা রোগীদের বিনামূলে সব ধরনের স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করবে।

রয়টার্সকে তিনি বলেন, যারা ফাস্ট সার্ভিস এবং অর্থ পরিশোধ করে সেবা গ্রহণ করেত চায় তারা বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, দেশটিতে করোনা আক্রান্ত রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার আগে ১ হাজার ২৬৭ মার্কিন ডলার বা ১ লাখ ৫০ হাজার নেপালি রুপি জমা দিতে হয়। এ কারণে সম্ভাব্য আক্রান্ত অনেক রোগী হাসপাতালে ভর্তি হতে পারছেন না। নিজেদের বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন তারা।

রয়াটার্সকে নেপালের জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ রবিন্দ্র পান্ডে জানান, অল্প কিছু লোক হাসপাতালে যেতে পারছেন। যার ফলে পরীক্ষা-নিরীক্ষা কম হচ্ছে। আক্রান্ত শনাক্তও কম হচ্ছে। আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করতে না পারায় সংক্রমণ অত্যাধিক বেড়েছে বলেও মত তার।

নেপাল সরকারের হিসেবে এ পর্যন্ত দেশটিতে ১ লাখ ৯৭ হাজার ২৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছে ১ হাজার ১২৬ জন। সোমবার আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৫৭১ জন। মারা যায় ১৮ জন।

রয়টার্সের তথ্য মতে, ভারত ছাড়া অন্যান্য প্রতিবেশি দেশগুলোর তুলনায় নেপালে দৈনিক আক্রান্তের হার অনেক বেশি।

মহামারী মোকাবিলায় দুর্বল স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা এবং ঝুঁকি উপেক্ষা করায় প্রধানমন্ত্রী ওলি ব্যাপকভাবে সমালোচিত হয়েছেন।

জুনে করোনা নমুনা পরীক্ষা বাড়ানো এবং আরো ভালো চিকিৎসার দাবিতে বিক্ষোভ করে সাধারণ মানুষ। বিক্ষোভে পুলিশ ও সাধারণ মানুষের মধ্যে সংঘাতের ঘটনা ঘটে। আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে জলকামান নিক্ষেপ করে নিরাপত্তা বাহিনী।

নেপালের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা দুর্বল। সরকার জানিয়েছে, তাদের প্রতিদিন ২৩ হাজার নমুনা পরীক্ষার সক্ষমতা রয়েছে। তবে বাস্তবে এ সংখ্যা ১৫ হাজারের বেশি নয়।

somoynews

About namiradistro

Check Also

Kisah Mbah Jariman, Terbungkuk Jual Es Cendol Demi Bisa ke Tanah Suci, Mimpi Lihat Ka’bah

Seorang kakek yang akrab disapa Mbak Jariman (74) tetap semangat berjualan es cendol keliling, meskipun …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

7 − 3 =